শুক্রবার , ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

মোংলায় পূর্ব শত্রুতার জেরে সন্ত্রাসী হামলায় দুই যুবক রক্তাক্ত জখম

॥ বাগেরহাট প্রতিনিধি ॥

মোংলায় তুচ্ছ একটি ঘটনা নিয়ে দীর্ঘদিন থেকে দন্ধ চলে আসছিল মাকোরঢোন এলাকার মেশেরশাহ গ্রামের মোঃ ছগির পরিবারের সাথে একই এরাকার প্রতিপক্ষ জাকারিয়া পরিবারের সাথে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এরই সুত্রধরে সোমবার সন্ধ্যায় কয়েকজন সন্ত্রাসীরা হৃদয় ও তার ছোট ভাইকে মেরে রক্তাক্ত জখম করে। এঘটনা নিয়ে থানায় অভিযোগ দায়ের হয়েছে।

 

সন্ত্রাসী জাকারিয়া পরিবারের লোকজন আরো ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। এরই সুত্রধরে সোমবার সন্ধ্যায় প্রকাশ্যে গালাগালী করতে থাকে এবং ছগির পরিবারের লোকজনকে প্রান নাশের হুমকি দেয়া হয় বলে থানায় দেয়া অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে।

পুলিশ, ভুক্তভোগী ছগির মোল্লা জানায়, সন্ত্রাসী জাকারিয়া সহ তার লোকজনের বাড়ীর সেফটি ট্যাংকির মুখ মেইন রোডের দিকে দেওয়ায় সর্বদা ময়লা দূর্গন্ধ বের হতে থাকে। যাতে মেইন সড়ক দিয়ে চলাচলকারী ও প্রতিবশী সহ এলাকার স্থানীয়দের খুব সমস্যা দেখা দিলে সকলেই তাদের এহেন কর্মকান্ডের প্রতিবাদ করে এবং ময়রা আবর্জনা অন্যাত্র ফেরার জন্য বলে।

এলাকাবাসীর কথায় জাকারিয়ার পরিবারের লোকজন কোন কর্নপাত না করায় তারা ময়লা আবর্জনার দূর্গন্ধ থেকে পরিত্রাণ পেতে এলাকাবাসীর যৌথ স্বাক্ষরে মোংলা পোর্ট পৌরসভার মেয়র বরাবরে একটি আবেদন করে।

এতে সন্ত্রাসী জাকারিয়া পরিবারের লোকজন আরো ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। এরই সুত্রধরে সোমবার সন্ধ্যায় প্রকাশ্যে গালাগালী করতে থাকে এবং ছগির পরিবারের লোকজনকে প্রান নাশের হুমকি দেয়া হয় বলে থানায় দেয়া অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে।

এদিন সন্ধ্যায় ছগির হোসেনের ছেলে হৃদয় মোল্লা মটর সাইকেল যোগে বাড়ী আসার পথে পুর্ব পরিকল্পিত ভাবে সন্ত্রাসী জাকারিয়া, জুলকার নাইম, জামিল, জাহিদুল সহ অজ্ঞাতনামা ১০/ ১২ জন লোক দেশীয় অস্ত্র নিয়ে রাস্তার উপর ফেলে বেধরক মারপিট করে রক্তাক্ত জখম করে ফেলে রাখে।

আহত হৃদয়ের ডাক চিৎকারে ছোট ভাই রানা মোল্লা উদ্ধার করতে গেলে তাকে মেরে রক্তাক্ত জখম করে। পরে অচেতন অবস্থায় স্থানীয়রা হৃদয় ও রানাকে উদ্ধার করে মোংলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। এঘটনায় পিতা ছগির হোসেন বাদী বাদি হয়ে জাকারিয়া, জুলকার নাইম, জামিল, জাহিদুল সহ অজ্ঞাতনামা ১০/ ১২ জনকে আসামী করে মোংলা থানায় এজাহার দাখিল করে। তবে এখনও কোন আসামী আটক হয়নী বলে নিরাপত্তা হিনতায় দিন কাটছে ছগির হোসেন’র পরিবারের সদস্যদের।

মোংলা থানার সেকেন্ড অফিসার ঠাকুরদাশ মন্ডল বলেন, মানুষের চলাচল রাস্তায় ময়লা আবর্জনা ফেলাকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষ জাকারিয়া পরিবারের সাথে মারামারী বিষয় নিয়ে থানায় একটি অভিযোগ দায়ের হয়েছে। এতে রানা মোল্লা তেমন আঘাত প্রাপ্ত না হলেও হৃদয় নামের এক যুবক জখম হয়েছে। সে বর্তমানে মোংলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আছে। তদন্ত পুর্বক আইনানুগ ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে বলে জানায় থানার সেকেন্ড অফিসার।

Check Also

সিরাজগঞ্জের সলংগায় মাদ্রাসা পড়ুয়া ১০ বছরের ছাত্রী নিখোঁজ।

॥ এম আরিফুল ইসলাম, সলংগা (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি ॥ সিরাজগঞ্জের সলংগা থানাধীন রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়নের অলিদহ গ্রামের সানজিদা …