সোমবার , ১৭ জুন ২০২৪
ছবিঃ আতাউর রহমান রাজু, উল্লাপাড়া

উল্লাপাড়ায় সরকারি ও কৃষকের জায়গা দখল করে বহুতল ভবন নির্মাণের অভিযোগ

॥ এ আর রাজু, উল্লাপাড়া (সিরাজঞ্জ) প্রতিনিধি ॥

ল্লাপাড়া উপজেলার পূর্ণিমাগাঁতী ইউনিয়নের গয়হাট্রা বাজার সংলগ্ন ব্রীজের পাশে ভাগলগাছী গ্রামের দুই কৃষকের জমি এবং খাস খতিয়ানের জায়গা দখল করে পাকা ভবন নির্মাণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় ভুমিদস্যুদের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের করেছে ভুক্তভোগী জমির মালিক মোঃ আছাদ আলী। ন্যায় বিচারের স্বার্থে উক্ত ভুমির উপর ১৪৪ ও ১৪৫ ধারা জারি করেছে আদালত। বৃহস্পতিবার সকালে আদালতের আদেশ অমান্য করে ভাগলগাছি গ্রামের ভূমিদস্যু মুকুল হোসেন, আব্দুর রশিদ ও ফরজ আলী নামের তিন সহোদর ও তাদের বাহিনী ভবন নির্মাণের কাজ শুরু করতে গেলে জমির মালিক আছাদ তাতে বাঁধা দেয়। এ সময় উভয় পক্ষের মধ্যে বাগবিত-া ও ধস্তাধস্তি শুরু হয়। ঘটনাস্থলে মিডিয়াকর্মী পৌঁছিলে বিভিন্ন ভয়ভীতি প্রদর্শন করে ভূমিদস্যু মুকুল বাহিনীর সন্ত্রাসীরা।

 

এমন কি তাদের কাছে এলাকার নারীরাও নিরাপদ নয় বলেও অভিযোগে জানান আছাদ। তাদের এ সব কর্মকান্ডের প্রতিবাদ করায় আমাকে ও আমার লোকজনের বিরুদ্ধে একাধিক মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করে চলেছে এই ভুমিদস্যুরা।

মামলার বাদী ও জমির মালিক মোঃ আছাদ আলী অভিযোগ করে বলেন, উপজেলার গয়হাট্রা বাজারের দক্ষিণপার্শ্বে ব্রীজ সংলগ্ন ভাগলগাছি গ্রামে আমার নিজস্ব সম্পত্তিতে কারখানা ও লেদ মেশিনের ওয়ার্কসপ রয়েছে। গত কয়েক মাস আগে আমার ভুমির জায়গা দখল করে একই গ্রামের ভুমিদস্যু মুকুল হোসেন, আব্দুর রশিদ ও ফরজ আলী নামের তিন সহোদর ও তার সন্ত্রাসী বাহিনীর লোকজন মিলে আমার পৈত্রিক সম্পত্তিতে বহুতল ভবন নির্মাণ করে। এতে বাঁধা দিলে আমাকে ও আমার পরিবারের সদস্যদেরকে মারপিট করে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেয়।

তারা সংঘবদ্ধভাবে হাজারো মানুষকে জিম্মি করে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড পরিচালনা করে এলাকায় নিরব চাঁদাবাজি, সন্ত্রাসী, সুদ ও ঘুষের কারবার করে চলেছে। এমন কি তাদের কাছে এলাকার নারীরাও নিরাপদ নয় বলেও অভিযোগে জানান আছাদ। তাদের এ সব কর্মকান্ডের প্রতিবাদ করায় আমাকে ও আমার লোকজনের বিরুদ্ধে একাধিক মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করে চলেছে এই ভুমিদস্যুরা। তাদের এমন ধরনের সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে আমরা বিব্রত ও অসহায় হয়ে পড়েছি।

তিনি আরও জানান, মুকুল বাহিনীর বিরুদ্ধে আদালতে জবর দখলের মামলা দায়ের করলে উক্ত মামলায় আদালত নালিশি সম্পত্তির উপর ১৪৪ ও ১৪৫ ধারা জারি করে৷ এ আদেশও অমান্য করে অভিযুক্তরা বৃহস্পতিবার সকালে পুনরায় ভবন নির্মাণের কাজ শুরু করে। এতে বাঁধা দিলে তারা লাঠিসোঠা নিয়ে আমাদেরকে মারার জন্য হুমকি দেয়। ঘটনাস্থলে সাংবাদিক পৌঁছিলে তাদেরকেও বিভিন্ন ভয়ভীতি দেখায় বিবাদীগণ।

অভিযুক্ত মুকুল জানান, বাদীর অভিযোগ মনগড়া। তাদের বিরুদ্ধে আদালতে চাঁদাবাজি মামলা সহ বেশ কয়েকটি মামলা রয়েছে। তারা সমাজের বিভিন্ন ধরনের অপরাধমুলক কাজের সঙ্গে জড়িত।

Check Also

দৌলতদিয়ায় উত্তরন ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে পূর্বপাড়ার ২ হাজার দুঃস্হ্য নারীদের জন্য কুরবানি মাংস বিতরণ

॥ আবুল হোসেন, রাজবাড়ী জেলা প্রতিনিধি ॥ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া পূর্ব পাড়ার (যৌনপল্লীর) দুই …