বৃহস্পতিবার , ১৮ এপ্রিল ২০২৪

রমজানে লাগামহীন তরমুজের দাম।

॥ এম আরিফুল ইসলাম, সলংগা (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি ॥

মজান মাসের নিত্যপণ্যের দাম যেন কমছেই না। হুড় হুড় করে দাম বেড়েই যাচ্ছে প্রতিনিয়ত। পিস বা খুচরা হিসাবে তরমুজ কিনে এনে এক শ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেটের মাধ্যমে তা কেজি হিসাবে বিক্রি করছেন।

যেভাবে কেজিতে বিক্রি হয় যদি কেটে দিতো তাহলে নয়, ১/২ কেজি নিতাম কিন্তু দামেই খালি কেজিতে কিন্তু বিক্রি করার সময় পিস ছাড়া কেজি হিসাবে বিক্রি করে না কি আর করমু গবীর মানুষের দুঃখ কি আর কেউ বোঝে।

প্রতি কেজি ৭০-৮০ টাকা হিসাবে বাজারে বিক্রি হচ্ছে। একটি তরমুজ কিনতে গুনতে হচ্ছে প্রায় ৩৫০ থেকে ৪০০ টাকা। ফলে সাধারণ মানুষের ইচ্ছে থাকা সত্বেও কিনে খেতে পারছেন না রমজানে এই তরমুজ।

তারই ধারাবাহিকতায় আজ ২৫শে মার্চ (সোমবার) সরজমিনে বাজার জরিপ করে মিললো সত্যতা। একটি তরমুজ কিনতে হলে গুনতে হচ্ছে ৪০০ টাকার মত, যা খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষের পক্ষে প্রায় অসম্ভব।

এই বিষয়ে সাধারণ ক্রেতারা বলেন, আমাগো কি আর সাধ্য আছে একখান তরমুজ এতো টাকা দিয়ে কিনে খাওয়ার। সকালে ছেলে-মেয়ে বলছিলো বাবা আজ একখান তরমুজ কিনে এনো বাজার থেকে। বাজারে এসে দেখি তরমুজ এর দাম আকাশ চুম্বি, তাই আর কেনা হলো না, খালি হাতেই এখন বাড়ী ফিরে বাচ্চাদের বলবো আজ বাজারে তরমুজ নেই অন্যদিন এনে দিবো।

যেভাবে কেজিতে বিক্রি হয় যদি কেটে দিতো তাহলে নয়, ১/২ কেজি নিতাম কিন্তু দামেই খালি কেজিতে কিন্তু বিক্রি করার সময় পিস ছাড়া কেজি হিসাবে বিক্রি করে না কি আর করমু গবীর মানুষের দুঃখ কি আর কেউ বোঝে।

এবিষয়ে বিক্রেতার সাথে কথা বললে তিনি বলেন, স্যার আমরা কি করবো বলেন, আমরাও তো গবীর মানুষ, যা দিয়ে কিনি সেই ভাবেই তো বিক্রি করতে হবে। সারাদিন খাটনি করার পর যদি কিছু টাকা লাভ-ই না করি তাহলে আমাদের সংসার চলবে কেমন করে।

Check Also

ভিক্ষা ছেড়ে বিকল্প কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে বিশেষ চাহিদা সম্পর্ণ রতনদের পাশে প্রশাসন

॥ আবুল হোসেন, রাজবাড়ী জেলা প্রতিনিধি ॥ একটা সময় মানুষের দুয়ারে দুয়ারে হাত পেতে জীবিকা …